ফরিদপুরে সফলতার এক বছর পার করলেন সদর ইউএনও মাসুম রেজা


মোঃ ইনামুল হাসান মাসুম:
ফরিদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদানের পর সফলতার সাথে এক বছর পার করলেন মোঃ মাসুম রেজা। তিনি ৩০তম ব্যাচের বি.সি.এস (প্রশাসন) ক্যাডারের একজন সুনাম ধন্য সদস্য। এর আগে তিনি রাজবাড়ী বালিয়াকান্দি উপজেলায় ইউএনও হিসেবে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

মেধায় মনননে একজন সু-দক্ষ সরকারি প্রশাসনের ক্যাডার অফিসার হিসেবে মোঃ মাসুম রেজা এর প্রসংশা রয়েছে অপরিমেয়। গত ০৮-০৭-২০১৯ খ্রি মাসুম রেজা ফরিদপুর সদর উপজেলায় নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। অত্যান্ত সু-দক্ষ প্রশাসনিক সমন্বয়, বিচক্ষনতার সাথে সদাশয় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড তদারকি করছেন।

যৌতুক-বাল্যবিবাহ রোধ, বাজার মনিটরিং, মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে অবৈধ বালু উত্তোলন-পাচার নিরোধ, ইভটিজিং প্রতিরোধ, সড়ক দুর্ঘটনা এড়াতে পরিবহন সেক্টরের লোকদেরকে কর্মশালার মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন জাতীয় আন্তর্জাতিক দিবসগুলো যথাযথ মর্যাদায় পালন করছেন তিনি। সাম্প্রতিক বাস্তবতায় সদর উপজেলার আওতাধীন এলাকায় সম্প্রীতি সু-রক্ষায় ইউনিয়ন ওয়ার্ড পর্যায়ে সম্প্রীতি সু-রক্ষা কমিটি গঠনপূর্বক স্থানীয়দের মাঝে সম্প্রতি সু-দৃঢ় করণের অব্যাহত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে কাজ করছেন। ত্রাণ কার্যক্রম তদারকি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, মৎস্য, সমাজসেবা বিভাগ, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার মাধ্যমে নারী-শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ ও উন্নয়ন, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পসহ সরকারের সকল সেবা মূলক বিষয়গুলো নিবিড় তদারকি করছেন পুরুষ সমাজের অনুপ্রেরণা দানকারী ইউএনও।

সদর উপজেলায় বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রামণ রোধে সরকারি নির্দেশনায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন ইউএনও মাসুম রেজা। করোনা ভাইরাস যখন পুরো পৃথিবী সহ বাংলাদেশে মহামারি আকার ধারণ করেছে সরকার থেকে নির্দেশনা আসলো সকলকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং হোম কোয়ারান্টাইন মেনে চলতে হবে।

সদর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রথম ধাপে ইউএনও মাসুম রেজা রাজনৈতিক ও সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী দল গুলোর পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক সহ বিভিন্নভাবে সচেতনতা প্রচার প্রচারণা চালিয়ে আসছেন এই উপজেলায়। পরর্বতীতে যখন করোনা কে কেন্দ্র করে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধিতে উঠেপড়ে লেগেছে ঠিক তখনই তিনি নিজেই উপজেলার প্রতিটা বাজারে বাজারে ঘুরে ঘুরে দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জরিমানা করে বাজার নিয়ন্ত্রণে আনতে সফল ভাবে সক্ষম হয়েছেন।

জরুরি ভিত্তিতে সেবা প্রদানের জন্য তিনি সরকারি নাম্বারের পাশাপাশি তার ব্যক্তিগত নাম্বারটি খোলা রেখেছেন। করোনা রোগিকে জরুরি সেবা প্রদানের জন্য তার ব্যবহৃত সরকারি গাড়িটি সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তারদের জন্য উন্মুক্ত ঘোষণা করেন। যেখানেই করোনা উপসর্গ রোগির সন্ধান পেয়ে থাকেন জরুরি ভিত্তিতে ঐ এলাকায় করোনা ভাইরাস মোকাবিলা লক ডাউনের আওতাধীন নিয়ে আসছেন।

দেশে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া ৩১ দফা নির্দেশনা সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত বলে তিনি বলেন, একাধিক লোকজনের জনসমাগম রোধে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় এখনও পর্যন্ত এই ভাইরাসের মহামারি রূপ কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়েছে বলে মনে করছেন। ইউএনও মাসুম রেজা।

একান্ত সাক্ষাৎতে সাংবাদিক মোঃ ইনামুল হাসান মাসুম কে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজা বলেন, আমরা ফরিদপুর সদর উপজেলায় কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছি পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ ভাবেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে বাড়ি থেকে কাজ করতে বলা হচ্ছে। ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে ত্রাণ সামগ্রী।

ভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ানোর প্রমাণ পেলেই মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে করা হচ্ছে জরিমানা। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে জরুরী ভিত্তিতে সেনাবাহিনী, পুলিশ যুক্ত হয়েছে করোনা মোকাবিলার কাজে এবং উপজেলা প্রশাসনের সাথে তারা সমন্বয় করে কাজ করে যাচ্ছেন। করোনা সচেতনতায় প্রচারণার পাশাপাশি মানুষের মুখে মাস্ক ব্যবহার এবং হাত ধোয়া, সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা রাখার ব্যাপারে নিরলসভাবে সচেতন করা হচ্ছে। বন্ধ করা হয়েছে রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ ও যান চলাচল। প্রাণঘাতি এই ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সবার আগে দরকার জনসচেতনতা।

সদর উপজেলার প্রত্যেক ইউনিয়নে ১০/১২ জনের একটি স্বেচ্ছাসেবক দ্বারা টিম গঠন করা হয়েছে। যারা ৫টি মোটরসাইকেলের সাহায্যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে। এছাড়াও এই স্বেচ্ছাসেবক টিম কোয়ারান্টাইন, লক ডাউন সহ অন্যান্য কাজে উপজেলা প্রশাসন এবং থানা পুলিশের সাথে সমন্বয় করে কাজ করে যাচ্ছে। আসুন, সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে দেশের স্বার্থে, পরিবার ও সমাজের স্বার্থে সবাই ঘরে থাকি, নিরাপদ থাকি। সব মিলিয়ে একটি রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার মধ্য দিয়ে চলছে ফরিদপুর সদর উপজেলা।

এই উপজেলাবাসী ইউএনও মোঃ মাসুম রেজার দীর্ঘায়ু ও সফলতা কামনা করেছেন।

স্থানীয়রা মনে করেন এই ইউএনও’র দায়িত্ব পালনকালে একটি বিনোদন পার্ক প্রতিষ্ঠিত হবে এই উপজেলায় যা বর্তমানে নির্মাণাধীন রয়েছে, আমরা খুব শিঘ্রই এর পূর্ণ রূপ আশা করছি।