ফরিদপুর জেলা প্রশাসনে সৃজিত হলো ছাদ বাগান “তারা উদ্যান”


জিল্লুর রহমান রাসেল, ফরিদপুর:

ফরিদপুর জেলা প্রশাসনে সাজানো হয়েছে ফলজ, বনজ, ঔষুধি ও রঙবেরঙ্গের নানা ফুলের গাছের সমন্বয়ে ছাদ বাগান “তারা উদ্যান”। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি স্বাধীনতার মহানায়ক বাংলাদেশের স্রষ্টা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গড়ে তোলা হয়েছে এ উদ্যান।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের চিন্তা ও পরিকল্পনায় কার্যালয়ের দ্বিতীয় তলার ছাদে এ উদ্যান সাজানো হয়েছে।

আজ ৩০ মে রবিবার সকাল ১০ টায় এ উদ্যানের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক অতুল সরকার। এ সময় স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) দীপক কুমার রায়, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোসাঃ তাসলিমা আলী, নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) আশিক আহমেদ, সহকারী কমিশনার (গোপনীয়) তারেক হাসান, রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর (আরডিসি) তানিয়া আক্তারসহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উদ্যানে মোট ৫০ প্রজাতির ১শতটি ফলজ, ঔষুধি ও ফুলের গাছ রোপন করা হয়েছে। এসবের মধ্যে রয়েছে গৌড়মতি আম, বারি-৪ আম, বারী-১১ আম, ব্রনাই কিং, আমেরিকান ক্যাট, কাটিমন ব্যানানা, সূর্য ডিম, পলমল, ছাতকের কমলা, আস্ট্রেলিয়া কমলা, চায়না কমলা, দার্জিলিং কমলা, পাকিস্তানি বেদানা, লাল বেদানা, করমচা, জলপাই, থাই মালটা, বারি-১ মালটা, বেরিগেড মালটা, পয়সা মালটা, থাই জাম্বুরা, লটকন, লিচু-চায়না, থ্রি সাতকরা ফল, কাশমেরী কুল, বল সুন্দরী কুল, সীডলেস কুল, চায়না লেবু, থাই লেবু, হাইব্রিড লেবু, হাইব্রিড বেল, হাই ব্রিড কদবেল, কামরাঙ্গা , লাল জামরুল, আমলকি, হাসনা হেনা, ড্রাগন সাদা, ড্রাগন লাল, ড্রাগন হলুদ, থাই ছফেদা, সাদা জাম, থাই আমড়া, কাওফল, ডাওয়া, চালতা, স্থলপদ্ম, শরিফা ফল (থাইল্যান্ড), আঙ্গুর, পেয়ারা, জাপাটি কাবা (ব্রাজিল), শান তৈল (ফিলিপাইন), লংগান (থাইল্যান্ড), থাই তেতুল, এ্যাভোক্যাডো (আমেরিকান), লাল আতা, কালো জাম, বহেরা, রেড লেডি পেঁপে, চেরি ফল (থাইল্যান্ড), থাই লাল কাঁঠাল, লজ্জাবতি গাছ, শোরভকাঠি লাল পেয়ার, শোরভকাঠি পেয়ার, থাই পেয়ারা, লাল বেদানা, রয়েল ফল, আলু বোখরা ইত্যাদি।

উদ্যান সৃজন সম্পর্কে জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, মুজিববর্ষে বিভিন্ন কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে আমরা শত প্রজাতির গাছ নিয়ে এই বাগান সৃজন করেছি। এটা সৌন্দর্য বর্ধনে ভূমিকা রাখবে। পুরো অফিসটাকে সবুজ রূপ দেয়ার চেষ্টা করছি। পরিবেশের সুস্থতা রক্ষার্থে আমরা অফিসটাকে গ্রীন অফিসে পরিণত করতে চাই, যেন এই অফিসটি অন্য মানুষ ও প্রতিষ্ঠানকে উৎসাহিত করে। অফিস বাসা-বাড়ির আঙ্গিনাসহ সব জায়গায় বৃক্ষ রোপনের জন্য তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *