ফরিদপুর সদর উপজেলায় হাট বাজার ইজারায় নিরপেক্ষতা-রেকর্ড পরিমান রাজস্ব আয়


জিল্লুর রহমান রাসেল, ফরিদপুর:

ফরিদপুর সদর উপজেলায় আজ এক উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছিল। লোকজনের আনাগোনা দেখে মনে হচ্ছিল এ যেন এক আনন্দানুষ্ঠান। হ্যাঁ আনন্দানুষ্ঠানই তো! তবে অন্য রকম এক অনুষ্ঠান। হাট বাজার ইজারার অনুষ্ঠান। যা এ যাবৎকালে নজিরবিহীন।

সদর উপজেলা প্রশাসনের নিবিড় তত্ত্বাবধানে বসে ছিলো ১৪২৮ বাংলা সনের হাট বাজার ইজারা বন্দোবস্তের জন্য। হাট বাজার ইজারায় এবার রেকর্ড পরিমাণ রাজস্বের সংস্থান হয়েছে সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহনে। ১৮ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ড্রপিং এর জন্য সময় নির্ধারণ করা হয়েছিলো। এরপর দুপুর ৩টায় খোলা হয় টেন্ডার বাক্স। এতে সদর উপজেলার ৪৭ টি হাটের ইজারা দেয়া বিজ্ঞপ্তির বিপরীতে ১৭৫ জন ব্যক্তি দরপত্র জমা দেন।

গতবছরের তুলনায় এবার তিন গুন রাজস্ব আদায় হয়েছে বলে উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানাগেছে। গতবছর হাট বাজার ইজারা দেয়া থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছিলো ১ কোটি ৬৩ লক্ষ ৫৯ হাজার ৪ শত ২৫ টাকা। আর এবার সকলের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতিতে ৪ কোটি ৬৪ লক্ষ ৭৫ হাজার ৮ শত ১৭ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হয় চরমাধবদিয়া ইউনিয়নের আফজাল মন্ডলের হাট। এবার হাটটি বিক্রি হয় ৯৬ লক্ষ ১০ হাজার ১ শত টাকায়।

হাট বাজার ইজারা প্রক্রিয়ার সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাসুম রেজা। এসময় অন্যদের মধ্যে ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডঃ শামসুল হক ভোলা মাস্টার, উপজেলা এলজিইডি ইঞ্জিনিয়ার মোঃ আজাহারুল ইসলাম, সিনিয়র উপজেলা মৎস কর্মকর্তা বিজন কুমার নন্দী সহ উপজেলার কর্মকর্তা-কর্মচারী, ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও টেন্ডারে অংশ নেয়া ব্যক্তিবর্গ।

এসময় উপজেলা প্রশাসনের এমন নিরপেক্ষ ভূমিকা দেখে প্রশংসা করেন টেন্ডারে অংশ নেয়া ব্যক্তিগন। এখন থেকে প্রতিবছর এমন ভাবে হাট বাজার টেন্ডার প্রক্রিয়া চলমান রাখার দাবি করেন সকলে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *